বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

আন্তর্জাতিক বাজারে অ্যারাবিকা কফির তুলনামূলক কম দাম বিদ্যমান থাকায় ভারতীয় রফতানিকারকরা পণ্যটির রফতানিতে আগ্রহ হারিয়েছেন।

এর জের ধরে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের শুরু থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভারত থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে পানীয় পণ্যটির রফতানি আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৩ শতাংশ কমেছে। কফি বোর্ড অব ইন্ডিয়ার সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। খবর ইকোনমিক টাইমস।

প্রতি বছর ১ এপ্রিল থেকে ভারতে নতুন অর্থবছর শুরু হয়। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ১ এপ্রিল থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভারত থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে সব মিলিয়ে ২ লাখ ৩২ হাজার ৮০ টন অ্যারাবিকা কফি রফতানি হয়েছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৩ শতাংশ কম।

দরপতনের ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি পাউন্ড অ্যারাবিকা কফির গড় দাম ৯৭ সেন্টে নেমে এসেছিল। বিগত ১২ বছরের মধ্যে এটাই অ্যারাবিকা কফির সর্বনিম্ন মাসভিত্তিক গড় দাম। বর্তমানে প্রতি পাউন্ড অ্যারাবিকা কফির দাম ১ ডলারের সামান্য ওপরে (৭১ দশমিক ৯২ ভারতীয় রুপি) অবস্থান করছে।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে ভারত থেকে ৩ লাখ ১৬ হাজার টন অ্যারাবিকা কফি রফতানি হয়েছে, যা আগের অর্থবছরের তুলনায় ১২ শতাংশ বেশি। বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে তুলনামূলক কম দামের কারণে ভারত থেকে পানীয় পণ্যটির রফতানিতে মন্দাভাব বজায় রয়েছে। এর জের ধরে অর্থবছর শেষে ভারতের অ্যারাবিকা কফি রফতানি খাতে ১০-১৫ শতাংশ মন্দাভাবের সম্ভাবনা দেখছেন খাতসংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »