বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

বাইরে যাওয়ার তাড়া হয়তো নেই। সারাদিন বাড়িতে থাকতে পারছেন। ঘরে বসে অফিসে কাজ করতে হলেও হেয়ারস্টাইল নিয়ে ভাবতে হচ্ছে না মোটেই। কোনোরকম খোঁপা গুঁজে বসে পড়ছেন কাজে। এদিকে গরমের আপনার স্ক্যাল্প ঘেমে সেই ঘাম আবার জমে চুলের ক্ষতি করছে, সেই খেয়াল কি আছে? মাথার তালু ঘামা একটি পরিচিত সমস্যা। এর কারণে চুলের গোড়া দুর্বল হয়ে চুল পড়ার সমস্যা বাড়তে পারে। এক্ষেত্রে কিছু করণীয় জানাচ্ছে ফেমিনা-

সপ্তাহে তিনবারের বেশি শ্যাম্পু করা ঠিক নয়, তবে মাথায় খুব ঘাম জমলে উপায় নেই। হালকা ক্ল্যারিফায়িং শ্যাম্পু তালুতে অল্প একটু ঘষে চুল ধুয়ে নিন। প্রতিবার চুলে কন্ডিশনার অবশ্যই ব্যবহার করবেন, তাতে স্ক্যাল্প আর চুল দুটোই তরতাজা থাকবে।

চুলল একটু ছোট করে কেটে ফেললে আরাম পাবেন। একাজে বাড়ির কারও সাহায্য নিতে হবে। নিজেও কাটা যায়, কিন্তু এক্সপার্ট হাত না হলে সে ঝুঁকি না নেয়াই ভালো। শ্যাম্পু করা চুল ভালো করে আঁচড়ে আঁচড়ে বড় কাঁচি দিয়ে কেটে ফেলুন। একটু এদিক ওদিক হলে ক্ষতি নেই, চুল আবার বড় হয়ে যাবে।

লম্বা চুল হলে সারাদিন বেঁধে রাখবেন না। অনেকে গরম এড়াতে অনেকে এই কাজ করেন, ফলে চুলের গোড়ায় খুব ঘাম জমে যায়। মাঝেমাঝে চুল খুলে ফ্যানের নিচে বসুন, ভালো করে চুল শুকিয়ে নিন।

চুল ভেজা অবস্থায় বেঁধে রাখলে চুলের ক্ষতি তো হয়ই, চুলের গোড়ায় ঘামও জমতে থাকে। চুল ভালো করে শুকিয়ে তারপর আলগা করে বেঁধে রাখবেন। খুব টাইট করে বাঁধলে গোড়ায় চাপ পড়ে চুল দুর্বল হয়ে যাবে।

বিশেষ বিশেষ হেয়ার মাস্ক চুলে ঘাম আর তেল জমা কমাতে পারে। তিন টেবিলচামচ লেবুর রসের সঙ্গে দু’ টেবিলচামচ ডাবের জল মিশিয়ে সেটা স্ক্যাল্পে ভালো করে ঘষে ঘষে মেখে নিন। ১৫ মিনিট রাখুন, তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। স্ক্যাল্প পরিষ্কার হবে, চুলে একটা তরতাজা গন্ধও থাকবে।

শ্যাম্পু বা তেল মাখার আগে তাতে কয়েক ফোঁটা পেপারমিন্ট অয়েল মিশিয়ে নিন। পেপারমিন্ট অয়েলে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল গুণ রয়েছে যা স্ক্যাল্প সতেজ রাখে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »