বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশে আসা উপলক্ষে কোনো অস্থিরতা তৈরি হলে সরকার তা মোকাবিলা করবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অষ্টম জাতীয় এসএমই মেলা-২০২০ উপলক্ষে আয়োজিত এক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
করোনাভাইরাস নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের করণীয় প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চীন ছাড়া বিশ্বের অন্যান্য দেশে করোনা আক্রান্তের হার কম। আমরা সৌভাগ্যবান যে আমাদের দেশে এই ভাইরাসে এখনো কেউ আক্রান্ত নেই। তবে যেসব দেশ থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে সেসব দেশকে আমরা অন অ্যারাইভাল ভিসা দেয়া বন্ধ করে দিয়েছি। এয়ারলাইন্সগুলোকে অনুরোধ করেছি অন্যদেশ থেকে বাংলাদেশে যারা আসবে অবশ্যই তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে হবে।

তিনি জানান, বিভিন্ন দেশকে অনুরোধ করা হয়েছে, যারা বাংলাদেশে আসবেন অবশ্যই স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে আসতে হবে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, বাংলাদেশের মেগা প্রকল্পগুলোতে চীনাদের কারণে যে শ্লথ গতি আসছে তা পুষিয়ে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে চীন সরকার।

এর আগে অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এসএমই খাতে ঋণখেলাপি মাত্র এক শতাংশ। উন্নত দেশগুলোতে ক্ষুদ্র শিল্পে সহজ কিস্তিতে ঋণ দেয়া হয়। এ খাতকে সহযোগিতা করলে দেশে দারিদ্র্য থাকবে না।

তিনি বলেন, বিশ্বের শিল্পসমৃদ্ধ দেশের ৯০ শতাংশই এসএমই দ্বারা নিজেদের গড়ে তুলেছে। কিন্তু বাংলাদেশের অর্থনীতির মাত্র ২৫ শতাংশ এসএমই খাত থেকে আসে। এ খাতে আরও উন্নতি করার বিশেষ প্রয়োজন রয়েছে।

ড. আব্দুল মোমেন জানান, উদ্যোক্তাদের মধ্যে ১৯৫ জন নারী এবং ১০১ জন পুরুষ এ মেলায় রয়েছেন। নারীর ক্ষমতায়নের এটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি।

বুধবার অষ্টম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা-২০২০ শুরু হয়। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত। মেলায় দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা স্বল্প পুঁজির উদ্যোক্তাদের তৈরি পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রি করা হচ্ছে।

এবারের মেলায় সারা দেশ থেকে ২৯৬টি এসএমই উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। তারা ৩০৯টি স্টলে নিজেদের উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন করেছে। পাশাপাশি এ মেলায় ক্রেতা ও বিক্রেতা মিটিং বুথ, রক্তদান কর্মসূচি, মিডিয়া সেন্টারসহ অনলাইন পণ্য মার্কেটিং বিষয়ক স্টল রয়েছে।

এবারের জাতীয় এসএমই পণ্য মেলায় শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ওড়না, শিশুদের পোশাক, ছেলেদের ফতুয়াসহ বিভিন্ন ধরনের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। মেলায় বিক্রি হচ্ছে বিছানার চাদর, সোফার কুশন, নকশি কাঁথা, বালিশের কভারসহ বিভিন্ন ধরনের ঘর-গৃহস্থালির পণ্যও ।

ব্যাগ, জুতা-স্যান্ডেল, গয়না ছাড়াও মেলায় পাওয়া যাচ্ছে- পাটজাত পণ্য, খাদ্য ও কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, চামড়াজাত সামগ্রী, ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক সামগ্রী, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য, তথ্য-প্রযুক্তি (আইটি) পণ্য, প্লাস্টিক ও সিনথেটিক পণ্য, হস্তশিল্পসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের পণ্য।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »