বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

গত শতাব্দীর শেষ বছর, সাল ১৯৯৯। তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে তখন অস্ট্রেলিয়া সফরে ভারতীয় ক্রিকেট দল। তিনটি চারদিনের ও একটি পঞ্চাশ ওভারের ম্যাচ খেলে নিজেদের প্রস্তুতি সেরে নেয় শচিন টেন্ডুলকারের নেতৃত্বাধীন ভারত। পরে ১০ ডিসেম্বর অ্যাডিলেইডে শুরু হয় সিরিজের আনুষ্ঠানিক খেলা।

সে ম্যাচে ২৮৫ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে গিয়েছিল ভারত। প্রথম ইনিংসে স্টিভ ওয়াহ (১৫০) ও রিকি পন্টিংয়ের (১২৫) সেঞ্চুরিতে ৪৪১ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় অস্ট্রেলিয়া। জবাবে শচিন (৬১) ও সৌরভ গাঙ্গুলির (৬০) ফিফটিতে ভর করে ২৮৫ রানে থামে ভারতের ইনিংস।

দ্বিতীয়বার ব্যাট করতে নেমে জাভাগাল শ্রীনাথ ও অজিত আগারকারের পেস তোপে তেমন কিছু করতে পারছিল না অসিরা। শেষতক ৮ উইকেটে ২৩৯ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে তারা। ফলে ভারতের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৯৬ রানের। যার জবাবে মাত্র ১১০ রানে অলআউট হয় তারা, হেরে যায় ২৮৫ রানের বিশাল ব্যবধানে।

কিন্তু প্রায় ২১ বছর এসে কেন সেই সিরিজের স্মৃতিচারণ? কী হয়েছিল সেই পাঁচদিনে যা এখনও ম্যাচটিকে রেখেছে আলোচনায়? উত্তর হলো, সে ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম অদ্ভুত আউটের জন্ম দিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ান পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা। তিনি ‘শোল্ডার বিফোর উইকেট’ বা এসবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক শচিনকে। যার দরুণ ম্যাকগ্রা ও তার পরিবারকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়া হয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়ার দেয়া ৩৯৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ২৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল ভারত। দলের অন্যতম সেরা দুই ব্যাটসম্যান ভিভিএস লক্ষণ (০) ও রাহুল দ্রাবিড় (৬) ফিরে গিয়েছিলেন সাজঘরে। ফলে ম্যাচ বাঁচানোর জন্য ভারতের আশা ছিলো অধিনায়ক শচিনের ব্যাটে।

কিন্তু রানের খাতা খোলার আগেই তাকে অদ্ভুতভাবে এক ডেলিভারিতে আউট করেন ম্যাকগ্রা। ইনিংসের নবম ওভারের সে ডেলিভারিটির লেন্থ ছিলো বেশ খাট, ফলে বাউন্সার ভেবে বসে পড়েছিলেন শচিন। কিন্তু বলটি বাউন্স না করে গিয়ে আঘাত হানে শচিনের কাঁধে। যা দেখে আবেদন করতে শুরু করেন অস্ট্রেলিয়ার ফিল্ডাররা। আম্পায়ার ড্যারেল হার্পার মনে করেন, বলটি স্টাম্পেই আঘাত হানত। ফলে লেগ বিফোরের সিদ্ধান্ত জানান শচিনের বিপক্ষে।

ফলে খালি হাতেই ফিরতে হয় ভারতীয় অধিনায়ককে। পরে সফরকারীরা অলআউট হয়ে যায় মাত্র ১১০ রানে। ম্যাচের ফল ছাপিয়ে শচিনের সেই আউটটিই সকলের দৃষ্টি কেড়ে নেয়। প্রায় ২১ বছর সে উইকেটের স্মৃতিচারণ করেছেন খোদ গ্লেন ম্যাকগ্রা। জানিয়েছেন শচিনকে অমনভাবে আউট করার পর নিরাপত্তা শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিলেন তিনি।

ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে ম্যাকগ্রা বলেন, ‘হ্যাঁ এটা লজ্জাজনক যে তখনকার দিনে রিভিউ সিস্টেম ছিলো না। তখন আসলে যা হয়েছিল যে, শচিন মাত্র ব্যাটিংয়ে নেমেছিল। যতদূর মনে পড়ে সে তখনও রানের খাতা খুলতে পারেনি। তাই শুরুতেই একটা বাউন্সার দিয়ে তাকে ভড়কে দিতে চেয়েছিলাম।’

‘কিন্তু বলটা তেমন উঠল না এবং শচিনও লম্বা কোনো খেলোয়াড় না। তাই সে নিচু হয়ে বসে পড়ল কিন্তু বলটা আঘাত করলো তার কাঁধে। আমি যেখান থেকে দেখছিলাম, মনে হচ্ছিলো বলটা স্টাম্পে লাগত। কারণ আমি ওর মাথার ওপর দিয়ে বেইলস দেখতে পাচ্ছিলাম। তাই আবেদন করলাম এবং আম্পায়ারও আউট ঘোষণা দেয়।’

সে ম্যাচের প্রায় ২১ বছর পর এসে ম্যাকগ্রার এখনও মনে হয় যে শচিন সেদিন আউটই ছিলেন। তবে লেগ বিফোর নয়, শোল্ডার বিফোর উইকেট। অস্ট্রেলিয়ান পেসার বলেন, ‘আমি এখনও মনে করি এটা আউট ছিলো। তবে শচিন এখনও ভাবে যে বলটা স্টাম্পের ওপর দিয়ে চলে যেত। তবে এটা লেগ বিফোর উইকেট হতে পারে না। এর নাম হওয়া উচিৎ এসবিডব্লিউ বা শোল্ডার বিফোর উইকেট।’

আর এ আউটের কারণেই মৃত্যু হুমকি পেতে হয়েছিল ম্যাকগ্রাকে। তিনি বলেন, ‘এমন আউটের কারণে অনেক ভারতীয়ই আমার ওপর নাখোশ হয়। আমাকে অনেক স্লেজিং করা হয় এ কারণে। এমনকি কিছু মৃত্যু হুমকিও পেয়েছিলাম আমি। যে কারণে আমি ও আমার পরিবারকে বাড়তি নিরাপত্তা দেয়া হয়েছিল। কারণ শচিনকে আউট করায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া আমার জন্য আসা বেশ কিছু মৃত্যু হুমকি পেয়েছিল।’

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »