বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

অ্যাটেনশন ডেফিসিট হাইপার অ্যাকটিভিটি ডিসঅর্ডার (এডিএইচডি) বা শিশুর অতিরিক্ত চঞ্চলতা এবং অমনোযোগিতা রোধে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড-সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ বেশ উপকারী। সম্প্রতি ইউরোপের একটি গবেষণায় এ ফলাফল পাওয়া গেছে। ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড পাওয়া যায় কিছু মাছের তেল ও সবজির তেল থেকে। গবেষণায় বলা হয়, যারা ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড-সমৃদ্ধ খাবার খায় না, তাদের তুলনায় যারা এই খাবার সঠিক পরিমাণে খায় তাদের অমনোযোগিতার সমস্যা অনেকটাই দূর হয়। নিউরো ফিকোফারমাকোলজির এক প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ইয়াহু হেলথ জানিয়েছে এই তথ্য।

এডিএইচডি রোধে অভিভাবকরা শিশুদের খাদ্যতালিকায় ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড-সমৃদ্ধ খাবার বা মাছের তেলের সাপ্লিমেন্ট রাখতে পারেন বলে জানান গবেষণাকর্মের প্রধান দিয়েংক বস। তিনি নেদারল্যান্ডসের ইউনিভার্সিটি মেডিক্যাল সেন্টার উটরেক্টে পোস্ট ডক্টরাল গবেষক। শিশুদের এই সমস্যার সমাধান সম্পর্কে বস বলেন, যারা এসব খেতে পছন্দ করে না, তাদের ধীরে ধীরে খাওয়ানোর অভ্যাস করানো উচিত। কেননা এসব খাবার এডিএইচডির লক্ষণ উপশমে সহায়তা করে।

মেডিক্যাল ইউনির্ভাসিটি অব সাউথ ক্যারোলাইনার সাইকিয়াট্রি ও পেডিয়াট্রিক বিভাগের অধ্যাপক রাসেল বার্কলি বলেন, ‘তবে এসব খাবার কিছুটা মনোযোগ বাড়ালেও  মনোযোগ পরিবর্তনে বিশাল ভূমিকা রাখে না। এবং এ রোগের অন্য লক্ষণ, অস্থিরতা বা আগ্রাসন কমাতেও তেমন সাহায্য করে না। তাই এডিএইচডির ওষুধ চলাকালে এটি খাওয়ানো যাবে না বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, ‘যদি প্রকৃত অর্থেই এই সমস্যা ভালো করতে চান তাহলে সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করুন। পাশাপাশি ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড-সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ান।’

গবেষণায় বলা হয়,ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড-সমৃদ্ধ খাবার খেলে যেসব ছেলেশিশুর এডিএইচডির সমস্যা নেই তাদেরও মনোযোগের একই ধরনের উন্নতি হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার অব ডিজিজেস নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ থেকে বলা হয়, ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড পাওয়া যায় বিভিন্ন তেলযুক্ত সামুদ্র্রিক মাছে। এছাড়া সয়াবিন এবং ক্যানোলার তেল, ওয়াল নাটেও পাওয়া যায় এই তেল।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথের গবেষণায় বলা হয়েছে, ওমেগা-৩ সমৃদ্ধ খাবার হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। সিডিসির তথ্য অনুযায়ী, ১৮ বছরের নিচে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৬০ লাখ শিশুর মধ্যে এডিএইচডির সমস্যা পাওয়া গেছে; শিশু বয়সের একটি প্রচলিত রোগ এটি।

গবেষকরা জানান, যাঁদের এডিএইচডি আছে এবং যাদের নেই- দুই ধরনের শিশুদের ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড খাওয়ালে মনোযোগ বৃদ্ধি পাবে।  এটা উভয়ের ক্ষেত্রেই অনেকটা একই রকম কাজ করে। অভিভাবকদের উচিত ওমেগা-৩ যুক্ত খাবার শিশুদের খাদ্যতালিকায় যোগ করা।

বিশেষ ধরনের এই ফ্যাটি এসিড ওষুধ আকারে যেমন খাওয়া যেতে পারে আবার সাধারণ খাবারের সাথেও গ্রহণ করা যেতে পারে। আর দুটো পাশাপাশি চললেও কোনো সমস্যা নেই।

গবেষকরা এখনো বের করতে পারনেনি কেন ওমেগা-৩ যুক্ত খাবার মনোযোগ বৃদ্ধিতে কাজ করে। তবে তাঁরা জানান, ওমেগা-৩ গুরুত্বপূর্ণ মস্তিষ্কেরর গঠনের জন্য। ফ্যাটি এসিড মস্তিষ্কে স্নায়ুর সংকেত আদান-প্রদানের কাজে সহায়তা করে। এ বিষয় নিয়ে আরো আরো ভালোভাবে গবেষণা করার প্রয়োজন আছে বলে মনে করেন গবেষকরা।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »