বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

মাধবপুর লেক এবং চা বাগান মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত। দর্শনীয় মাধবপুর লেক বয়ে গিয়েছে ছোট পাহাড় ও টিলার মধ্য দিয়ে। লেকের চারপাশের বেশীরভাগ পাহাড় ও টিলায় চা চাষ করা হয়।

এই লেকের পানি সবসময় ছেয়ে থাকে নীল ও সাদা রঙের পদ্ম ফুলে। লেকটি এতটাই চওড়া যে ক্যামেরায় পুরো লেকটিকে ধারন করা প্রায় অসম্ভব। লেকের ওপর দিয়ে প্রায় সবসময় বাতাস বয়ে চলায় লেকটিকে একটি নদী অথবা শান্ত সাগরের মত দেখায়।

এই লেকের নীল ও সাদা পদ্ম ফুলগুলো বহুদূর থেকে এতটাই জ্বলজ্বল করে যেন মনে হয় পদ্মফুলগুলোর ওপর কেউ নিপুণ হাতে শিল্পকর্ম করেছে। লেক থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরে একটি স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে।

কিভাবে যাবেন
এই লেকটি ঢাকা থেকে প্রায় ২০৭ কিলোমিটার এবং মৌলভীবাজার থেকে প্রায় ৩৯.৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ঢাকা থেকে সোহাগ পরিবহন, হানিফ পরিবহন, শ্যামলী পরিবহন, টি আর ট্র্যাভেলস সহ বিভিন্ন বাস শ্রীমঙ্গলের পথে চলাচল করে। এছাড়া ঢাকা থেকে কালিনী এক্সপ্রেস, পারাবত এক্সপ্রেস, জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস এবং উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনগুলো সিলেটে যাবার পথে শ্রীমঙ্গলে যাত্রাবিরতি করে। এছাড়া আকাশপথে ঢাকা থেকে সিলেটে পৌঁছে তারপর শ্রীমঙ্গলে যেতে পারেন আপনি।

শ্রীমঙ্গলে পৌঁছে আপনি সিএনজি অটোরিকশা অথবা বাসে করে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়ক ধরে এই চা বাগানে পৌছাতে পারেন। এছাড়া আপনি ঢাকা থেকে সিলেটে পৌঁছে তারপর এখানে আসতে পারেন। সিলেট থেকে ৯৪.২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই চা বাগানে আপনি বাসে করে আসতে পারেন।

কোথায় থাকবেন
কি করবেন
১। লেকের সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন।
২। লেকের পাশে হাঁটার জন্য রয়েছে প্রায় ৮-১০ কিলোমিটার পথ। আপনি সেই পথ ধরে হাঁটতে পারেন।
৩। চা বাগানের সৌন্দর্য উপভোগের পাশাপাশি ছবি তুলতে পারেন।

খাবার সুবিধা
এখানে খাওয়ার ব্যবস্থা নেই তাই আপনাকে শ্রীমঙ্গল অথবা মৌলভীবাজারে গিয়ে খেতে হবে। তবে মাধবপুর থেকে ফেরার পথে আপনি কালীঘাট সড়কে নীলকণ্ঠ চা কেবিনে সাত রঙের চা পান করতে যেতে পারেন।

ভ্রমণ টিপস
১। আপনি এখান থেকে খাঁটি মধু কিনতে পারেন।
২। বর্ষাকালে এখানকার পথ পিচ্ছিল থাকে তাই এ সময় সতর্কতার সাথে হাঁটুন।
৩। লেকে নৌকা ভ্রমণের ব্যবস্থা এখন পর্যন্ত নেই।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »