বিজনেস২৪বিডি ডেস্ক »

ইরাকে দুটি মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর পর দুবাই এবং ইসরায়েলে বোমা হামলার হুমকি দিয়েছে ইরান। তেহরান বলছে, যুক্তরাষ্ট্র যদি ক্ষেপণাস্ত্র হামলার প্রতিশোধ নেয় তাহলে দুবাই এবং ইসরায়েলে হামলা চালানো হবে।

ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে, জেনারেল কাসেম সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে মার্কিন দুটি সামরিক ঘাঁটিতে হামলা চালানো হয়েছে। প্রতিশোধমূলক এই হামলার পর যুক্তরাষ্ট্র কোনও ধরনের হামলা চালানোর চেষ্টা করলে তাদের সামরিক ঘাঁটিগুলো আরও ভয়াবহভাবে গুঁড়িয়ে দেয়া হবে বলে সতর্ক করে দিয়েছে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী।

ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল বলছে, ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলের আইন আল আসাদ এবং কুর্দিস্তানের এরবিলে অবস্থিত মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে বুধবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এক ডজনের বেশি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরান।

ক্ষেপণাস্ত্র হামলার প্রতিশোধ নেয়ার চেষ্টা করা হলে ওই অঞ্চলে মার্কিন মিত্ররা আক্রান্ত হবে বলে হুমকি দিয়েছে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী। ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা আইআরএনএ বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর এক বিবৃতি প্রকাশ করেছে।

এতে বলা হয়েছে, এই অঞ্চলে যারা তাদের ঘাঁটিগুলো মার্কিন সন্ত্রাসী বাহিনীকে ব্যবহারের জন্য দিয়েছে আমরা তাদের সবাইকে সতর্ক করছি যে, ইরানের বিরুদ্ধে যেকোনও ভূখণ্ড থেকে কোনও ধরনের আগ্রাসন চালানো হলে তারা তেহরানের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হবে।

ইরানের অপর এক রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলের খবরেও সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই ও ইসরায়েলের হাইফায় হামলা চালানোর হুমকি দেয়া হয়েছে। প্রেস টিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৩ জানুয়ারি কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধে বিপ্লবী গার্ড বাহিনী ওই হামলা চালিয়েছে।

মঙ্গলবার ইরানি এই জেনারেলের দাফন অনুষ্ঠিত হয়েছে তার নিজ শহর কেরমানে। লাখ লাখ শোকাহত ইরানি জেনারেল সোলেইমানিকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে কেরমানের রাস্তায় নেমে আসেন। এ সময় অনেকের হাতে সোলেইমানির ছবি দেখা যায়; তাদের মুখে ছিল প্রতিশোধের স্লোগান।

পেন্টাগনের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এটা পরিষ্কার যে এসব ক্ষেপণাস্ত্র ইরান থেকে ছোড়া হয়েছে। ইরাকে আল-আসাদ ও ইরবিল সামরিক ঘাঁটিতে ইরানি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাত হেনেছে। তবে হামলায় মার্কিন কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেছে কিনা তা জানা যায়নি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ইরাকে সামরিক ঘাঁটি আক্রান্ত হওয়ার ব্যাপারে অবগত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পেন্টাগন। সিএনএন বলছে, ইরাকে সামরিক ঘাঁটি আক্রান্ত হওয়ার পরপরই মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও হোয়াইট হাউসে পৌঁছেছেন।

ইরানের দেশটির আধা-সরকারি সংবাদ সংস্থা তাসনিম নিউজ অ্যাজেন্সি বলছে, ইরাকে মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে দ্বিতীয় ধাপে হামলা শুরু করেছে ইরান। তাসনিম নিউজ অ্যাজেন্সি বলছে, প্রথম হামলা চালানোর এক ঘণ্টা পর ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী দ্বিতীয় দফায় হামলা চালিয়েছে।

গত ৩ জানুয়ারি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর বিদেশি সশস্ত্র শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়। ইরানি শীর্ষ এই সেনা জেনারেল হত্যাকাণ্ড ঘিরে মধ্যপ্রাচ্যে বাজছে যুদ্ধের দামামা। এর মাঝেই বুধবার ইরাকে মার্কিন সামরিক ঘাঁটি আক্রান্ত হলো।

সূত্র : ডেইলি মেইল, সিএনএন, তাসনিম নিউজ অ্যাজেন্সি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »