শুরুতেই দাম বাড়ার সর্বোচ্চ সীমায় ৩০ কোম্পানি

স্টাফ রিপোর্ট

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যে দাম বাড়ার সর্বোচ্চ সীমা স্পর্শ করেছে ৩০টি কোম্পানি।

দফায় দফায় দাম বাড়লেও যাদের কাছে কোম্পানিগুলোর শেয়ার আছে তারা বিক্রি করতে চাচ্ছেন না। ফলে ক্রেতা থাকলেও এক প্রকার বিক্রেতা সঙ্কট দেখা দিয়েছে। এই কোম্পানিগুলোর পাশাপাশি লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। ফলে লেনদেনের শুরুতে মূল্য সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা বিরাজ করছে।

এদিন শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হওয়ার আগেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৬০ পয়েন্ট বেড়ে যায়। প্রি-ওপেনিং সিস্টেম চালু থাকায় অনেক বিনিয়োগকারী বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার দাম বাড়িয়ে ক্রয়-বিক্রয়ের আদেশ দেন। এতেই লেনদেন শুরু হওয়ার আগেই সূচকের এই বড় উত্থান হয়।

এদিকে লেনদেন শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নতুন তালিকাভুক্ত হওয়া এনার্জিপ্যাকসহ বেশিরভাগ বীমা কোম্পানির শেয়ার দাম বাড়তে থাকে। দফায় দাম বাড়ায় দিনের দাম বাড়ার সর্বোচ্চ সীমা স্পর্শ করে ৩০ কোম্পানি।

এর মধ্যে রয়েছে- এনার্জিপ্যাক, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্স, প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, প্রভাতি ইন্স্যুরেন্স, ঢাকা ইন্স্যুরেন্স, ইসলামী ইন্স্যুরেন্স, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স, পিপলস ইন্স্যুরেন্স, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স, কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স, নিটল ইন্স্যুরেন্স, সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স, প্রাইম ইন্স্যুরেন্স, পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, নর্দান ইসলামী ইন্স্যুরেন্স, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স, রূপালী ইন্স্যুরেন্স, জনতা ইন্স্যুরেন্স, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স এবং রূপালী লাইফ।

ক্রেতারা দফায় দফায় দাম বাড়িয়ে এসব কোম্পানির শেয়ার কেনার চেষ্টা করলেও তারা ব্যর্থ হচ্ছেন। কারণ যাদের কাছে কোম্পানিগুলোর শেয়ার আছে তারা বিক্রি করতে চাচ্ছেন না।

এসব প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের এমন দাম বাড়ার প্রভাব মূল্য সূচকেও পড়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত প্রথম ৪৪ মিনিটের লেনদেনে ডিএসইর প্রধান সূচক বেড়েছে ১৭ পয়েন্ট। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ কমেছে ১ পয়েন্ট। আর ডিএসই-৩০ সূচক বেড়েছে ৭ পয়েন্ট।

ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১৩০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১০৬টির। আর ৮৪টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। এ সময় পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৩৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকা।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৫৫ পয়েন্ট বেড়েছে। লেনদেন হয়েছে ১৮ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেয়া ১১৮ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৫০টির, কমেছে ৪৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টির।

2 thoughts on “শুরুতেই দাম বাড়ার সর্বোচ্চ সীমায় ৩০ কোম্পানি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *