এবি ব্যাংকে ৮০ লাখের ইন্স্যুরেন্স সুবিধা

স্টাফ রিপোর্ট

‘এবি নিশ্চিন্ত’ নামের একটি ব্যতিক্রমধর্মী প্রডাক্ট চালু করেছে বেসরকারি এবি ব্যাংক। এ প্রডাক্টের আওতায় ১০ লাখ টাকার বেশি মেয়াদি আমানত করলে গ্রাহকরা ৮০ লাখ টাকার ইন্স্যুরেন্স সুবিধা পাবেন। গতকাল রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে ‘এবি নিশ্চিন্ত’ নামের প্রডাক্টটি উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ৫-১০ লাখ টাকার মেয়াদি আমানত করলে গ্রাহকরা ৫০ লাখ টাকার ইন্স্যুরেন্স সুবিধা পাবেন। আর মেয়াদি আমানত ১০ লাখ টাকার বেশি হলে কোনো প্রিমিয়াম প্রদান ছাড়াই মেট লাইফ থেকে ৮০ লাখ টাকার ইন্স্যুরেন্স সুবিধা পাবেন গ্রাহকরা।

নতুন প্রডাক্ট উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এবি ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আফজাল সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। নতুন প্রডাক্টটি সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন এবি ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও রিটেইল ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান আবদুর রহমান।

আবদুর রহমান বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরে দেশে ৬১টি ব্যাংক হয়েছে। কিন্তু এবি ব্যাংক নতুন যে প্রডাক্টটি নিয়ে এসেছে, তা কেউ চিন্তা করতে পারেনি। মানুষের জীবন অনিশ্চয়তায় ভরা। করোনা মহামারী আমাদের জীবনের অনিশ্চিত দিকগুলোকে আরো বেশি করে স্পষ্ট করে দিয়েছে। এ অবস্থায় দেশের সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করেই ‘এবি নিশ্চিন্ত’ প্রডাক্টটি সাজানো হয়েছে।

তিনি বলেন, এবি ব্যাংকের শাখার পাশাপাশি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের মাধ্যমে নতুন প্রডাক্টটি চালু করা যাবে। আমাদের ব্যাংকের হেলপলাইনে ফোন করলে আমরা বাড়িতে গিয়েও গ্রাহকদের সেবাটি দিতে চাই। আমেরিকান ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি মেটলাইফ সারা বিশ্বেই সুনামের সঙ্গে ব্যবসা করছে। এবি ব্যাংক মেটলাইফের সঙ্গে যুক্ত হয়ে আমানতকারীদের বীমা সুবিধাটি দেবে। ৫-১০ লাখ টাকা মেয়াদি আমানত রেখে গ্রাহকরা ৫০ লাখ টাকার এবং ১০ লাখ টাকার বেশি আমানত রেখে ৮০ লাখ টাকার বীমা সুবিধা প্রাপ্য হবেন। গ্রাহক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে মারা গেলে তার পরিবার বীমাকৃত অর্থ পাবেন। আর স্বাভাবিক মৃত্যু হলে ২০ লাখ টাকার বীমা সুবিধা পাবেন। বীমার জন্য গ্রাহককে কোনো প্রিমিয়াম জমা দিতে হবে না। আমানতটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় মেয়াদ বাড়বে। প্রতি মেয়াদ শেষে সর্বোচ্চ হারে গ্রাহক মুনাফা সুবিধা প্রাপ্য হবেন।

অনুষ্ঠানে এবি ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আফজাল বলেন, এবি ব্যাংক দেশের প্রথম বেসরকারি ব্যাংক। দেশের ব্যাংকিং খাতের নিত্যনতুন ও বৈচিত্র্যপূর্ণ অনেক সেবাই এবি ব্যাংকের হাত ধরে এসেছে। সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবেই আমরা ‘এবি নিশ্চিন্ত’ প্রডাক্টটি চালু করেছি।

তিনি বলেন, ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে দুই বছর ধরে আমরা অভিযান চালিয়েছি। এ অভিযান চলমান থাকবে। সংকট কাটিয়ে এবি ব্যাংক স্বমহিমায় ফিরেছে। বিদায়ী বছরে আমরা আগের চেয়ে বেশি মুনাফা করেছি। ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ ও হার কমেছে।

অনুষ্ঠানে ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাজ্জাদ হুসাইন, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক শামসিয়া আই মুতাসিমসহ জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *