প্রথম ইনিংসেই ম্যাচের ফল ঠিক করে ফেলল অস্ট্রেলিয়া!

স্টাফ রিপোর্ট

টেস্ট ক্রিকেট পাঁচ দিন ও চার ইনিংসের খেলা; কোনো এক দল অত্যধিক খারাপ খেললে ম্যাচ শেষ হয় তিন ইনিংসেই। তবে স্বাভাবিকভাবে দুই দলের চার ইনিংস হওয়ার পরই জানা যায় ম্যাচের ফলাফল। কিন্তু চলতি সিডনি টেস্টে যেন ম্যাচের প্রথম ইনিংসেই ফল ঠিক করে ফেলল স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া।

তবে সেটা অন্য কিছু দিয়ে নয়, তাদের গত দশকের পারফরম্যান্সেই মূলত আভাস পাওয়া গেছে এমন। ২০১১ থেকে ২০২০ পর্যন্ত সময়ে, ঘরের মাঠে খেলা টেস্টের প্রথম ইনিংসে অন্তত ৩০০ রান করার পর কোনো ম্যাচ হারেনি অস্ট্রেলিয়া। এমন ম্যাচের সংখ্যা ছিল ২৪টি। যেখানে অসিদের জয় ১৯টি আর ড্র বাকি পাঁচটি।

এবার ঘরের মাঠে নতুন বছর তথা দশকের প্রথম ম্যাচের প্রথম ইনিংসেও ভারতের বিপক্ষে ৩০০ রানের দলীয় সংগ্রহ পার করেছে অস্ট্রেলিয়া। গত দশকের ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে এ ম্যাচে অন্তত হারের সম্ভাবনা নেই বললেই চলে স্বাগতিকদের। বড় জোর হয়তো ড্রয়ের জন্য খেলতে পারে ভারত।

শুধু গত দশক বলা কেন! চলতি শতক অর্থাৎ কুড়ি বছরের পরিসংখ্যানে চোখ বোলালেও, তা কথা বলে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষেই। ২০০১ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত সময়ে ঘরের মাঠে ৫১টি টেস্টে আগে ব্যাট করে অন্তত ৩০০ রান করেছে অস্ট্রেলিয়া। যেখানে তারা হেরেছে মাত্র ৩টি ম্যাচ। বাকি ৪৮ ম্যাচে জয়ের সংখ্যা ৩৯ আর ড্র বাকি ৯টি।

স্টিভেন স্মিথের ২৭তম টেস্ট সেঞ্চুরিতে ভর করে সিডনিতে বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফির তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস থেমেছে ৩৩৮ রানে। প্রায় ১৬ মাস ও ১৪ ইনিংসে খরা কাটিয়ে করা সেঞ্চুরি স্মিথ খেলেছেন ১৩১ রানের ইনিংস। এছাড়া মার্নাস লাবুশেন আউট হয়েছেন ৯১ রান করে।

বৃহস্পতিবার ম্যাচের বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথম দিনে ২ উইকেট হারিয়ে ১৬৭ রান করেছিল অস্ট্রেলিয়া। আজ (শুক্রবার) দ্বিতীয় দিন আরও যোগ করতে পেরেছে ১৭১ রান, হারিয়েছে বাকি ৮ উইকেট। বাকিদের ব্যর্থতার ভিড়ে উজ্জ্বল ছিলেন স্মিথ। তুলে নিয়েছেন ২৭তম টেস্ট সেঞ্চুরি। যা ভারতের বিপক্ষে টেস্টে অষ্টম এবং সবমিলিয়ে ১৩তম সেঞ্চুরি।

টেস্ট ক্যারিয়ারে ২৭তম সেঞ্চুরিতে বিশ্বের দ্বিতীয় দ্রুততম ব্যাটসম্যান হলেন স্মিথ; তার লেগেছে ১৩৬ ইনিংস। মাত্র ৭০ ইনিংসে ২৭ সেঞ্চুরি করেছিলেন স্যার ডন ব্র্যাডম্যান। স্মিথের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি ২৭ সেঞ্চুরি করতে খেলেছিলেন ১৪১ ইনিংস।

স্মিথের সেঞ্চুরির দিন মাত্র ৯ রানের জন্য তিন অঙ্ক ছুঁতে পারেননি লাবুশেন। তৃতীয় উইকেটে স্মিথের সঙ্গে ঠিক ১০০ রানের জুটি গড়ে তিনি সাজঘরে ফিরে যান ১৯৬ বলে ৯১ রানের ইনিংস খেলে। এরপর হতাশ করেন ম্যাথু ওয়েড (১৩), ক্যামেরন গ্রিন (০), টিম পেইনরা (১)।

ফলে লেজের সারির ব্যাটসম্যানদের নিয়ে লড়াই চালাতে হয় স্মিথকে। দলীয় ২৫৫ রানের মাথায় ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন পেইন। এরপর চার বোলারকে নিয়ে আরও ৮৩ রান যোগ করেন স্মিথ। যেখানে বলার মতো ২৪ রানের ইনিংস ছিল মিচেল স্টার্কের।

রবীন্দ্র জাদেজার দুর্দান্ত থ্রো’য়ে ইনিংসের শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন স্মিথ। ততক্ষণে তার নামের পাশে জ্বলজ্বল করছিল ১৬ চারের মারে ২২৬ বলে ১৩১ রানের ইনিংস। মূলত তার ব্যাটে চড়েই ৩০০ ছাড়ানো সংগ্রহ দাঁড় করাতে পেরেছে অস্ট্রেলিয়া।

ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নিয়েছেন জাদেজা। এছাড়া জাসপ্রিত বুমরাহ ও অভিষিক্ত নবদ্বীপ সাইনির ঝুলিতে গেছে ১টি করে উইকেট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *