স্টাফ রিপোর্টার »

মহানবী (স)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন এবং ইসলাম ধর্ম নিয়ে ফরাসি প্রেসিডেন্টের বিরূপ মন্তেব্যের জেরে ক্ষোভ বাড়ছে মুসলিমদের মধ্যে। একারণে বাংলাদেশসহ বেশ কয়েকটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে ফরাসি নাগরিকদের জন্য বিশেষ সতর্কতা জারি করেছে ফ্রান্স।

মঙ্গলবার ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিশেষ নির্দেশনায় বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, ইরাক ও মৌরিতানিয়ায় অবস্থানরত ফরাসি নাগরিকদের বাড়তি সতর্কতা মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছে। তাদের ব্যঙ্গচিত্র-বিরোধী বিক্ষোভ বা যেকোনও ধরনের জনসমাবেশ এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে।

নির্দেশনায় ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ফরাসি নাগরিকদের সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। বিশেষ করে ভ্রমণের সময় এবং পর্যটক বা প্রবাসী সম্প্রদায়ের চলাচল বেশি এমন জায়গাগুলোতে বাড়তি সতর্কতা মেনে চলতে বলা হলো।

তুরস্কের ফরাসি দূতাবাসও নিজ দেশের নাগরিকদের একই ধরনের সতর্কবার্তা পাঠিয়েছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমান্যুয়েল ম্যাক্রোঁর অন্যতম কঠোর সমালোচক। তিনি সরাসরি সবধরনের ফরাসি পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়েছেন।

তবে মঙ্গলবার ফরাসি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডারমানিন বলেছেন, তুরস্ক এবং পাকিস্তানের উচিত ফ্রান্সের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক না গলানো।

ইতোমধ্যেই আঙ্কারায় নিযুক্ত ফরাসি অ্যাম্বাসেডরকে ডেকে পাঠিয়েছে প্যারিস। আর সোমবারই ফ্রান্সে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূতকে ফেরত নেয়ার বিষয়ে পাকিস্তানের পার্লামেন্টে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে।

এর আগে, গত শুক্রবার ফ্রান্সের কয়েকটি সরকারি ভবনে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করা হয়। আর চলতি মাসের শুরুর দিকে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমান্যুয়েল ম্যাক্রোঁ ইসলামকে সংকটাপন্ন ধর্ম বলে বর্ণনা করেছিলেন।

দেশটির এমন আচরণে ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়েছে মুসলিমদের মধ্যে। কুয়েত, কাতার, মিসর, আলজেরিয়া, জর্ডান, সৌদি আরব, তুরস্ক তো বটেই, ম্যাক্রোঁর সমালোচনা করেছে ইউরোপের দেশ যুক্তরাজ্যও।

গত কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে চলছে ফ্রান্স ও ম্যাক্রোঁবিরোধী ব্যাপক প্রচারণা। ফরাসি পণ্য বয়কটের ডাক রীতিমতো ভাইরাল। অনেক দেশেই রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করেছেন ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা। মুখ খুলেছেন মুসলিম দেশের নেতারাও।

গত রোববার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান ফরাসি প্রেসিডেন্টকে ‘মানসিক ভারসাম্যহীন’ বলে মন্তব্য করেছেন।

ফ্রান্সে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স)-এর কার্টুন প্রদর্শন ও মুসলিমবিরোধী অবস্থানের ঘটনায় মঙ্গলবার ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ম্যাক্রোঁর বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাতে গত সোমবার ইসলামাবাদে ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে ডেকে পাঠিয়েছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও।

ইরাকে রাবা আল্লাহ নামে একটি দল এক বিবৃতিতে বলেছে, ফ্রান্সের কর্মকাণ্ডে বিশ্বের দেড়শ’ কোটি মুসলিম অপমানিত হয়েছে। দলটি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, তাদের সদস্যরা প্রয়োজনে যেকোনও সময় যেকোনও জায়গায় প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রস্তুত রয়েছে।

মঙ্গলবার প্রতিবাদ জানিয়েছে মহানবী (স)-এর জন্মস্থান সৌদি আরব। নবী কারীম (স)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন এবং ইসলামকে সন্ত্রাসের সঙ্গে সম্পর্কিত করার অপচেষ্টার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে দেশটি।

সূত্র: রয়টার্স

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »