জবস-এর সব খবর

শিক্ষা জীবনের এক পর্যায়ে এসে সবারই একটা লক্ষ থাকে যে ভাল মানের একটা চাকুরি করা । স্টুডেন্ট লাইফে অনেকেই অনেক কাজ করে থাকে । কেউ টিউশনি করে, কেউ কোচিং সেন্টার, কেউবা আমার মত ফ্রীল্যান্সিং করে । অনেকে মনে করে যে ভাল একটা পর্যায়ে চাকুরি করার জন্য ভাল রেজাল্ট বা ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে পাশ করতে হবে , এই ধারনাটি কিছুটা ভুল । আপনার যদি এপ্লাই করার মত যোগ্যতা থাকে ও ভাল পারফমেন্স দেখাতে পারেন তাহলে আপনার চাকুরি হতে তেমন কোন বাধা নেই । গ্রাজুয়েশন বা মাস্টার্স কম্পিলিট করার পর অনেকের ই প্রথম লক্ষ থাকে ভাল একটা সরকারি চাকুরি করা । কেই হতে চায় সরকারি কর্মকর্তা কেউবা করতে চায় ভাল মাল্টিন্যাশলাম কোম্পানিতে জব । আসুন এবার দেখি বর্তমান সময়ে সরকারি চাকুরি পেতে হলে আপনার কি কি যোগ্যতা থাকতে হবে ।

১ – ৪ বছর সমমানের স্নাতক ড্রিগ্রি অথবা স্নাতকোত্তর ড্রিগ্রি ( যে কোন বিষয়ের উপরে থাকলেই হবে তবে ইঞ্জিনিয়ারিং, ম্যাথমেটিক্স, ইংরেজি, ফিজিক্স, রসায়ন বিষয়ের উপরে থাকলে অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকবেন ভাল কোন টেকনিক্যাল সাবজেক্ট এ পড়ার একটা সুবিধা হল আপনি টেকনিক্যাল নন টেকনিক্যাল ২ জায়গায়েই এপ্লাই করতে পারবেন আর আপনার ব্যাকগ্রাউন্ডে যদি ভাল কোন সাবজেক্ট এ ডিপ্লোমা থাকে তাহলে তো কোন কথাই নেই, অনেকের ধারনা যে ডিপ্লোমা করে ভাল চাকুরি পাওয়া যায় না । এটা আসলে একটা ভুল ধারনা । এখন সরকারি চাকুরিতে একজন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারের প্রারম্ভিক বেতন স্কেল ২২.০০০ হাজার টাকা , সব মিলিয়ে প্রায় ৪৫+ হাজার টাকা আসে

২ – সরকারি চাকুরি করার জন্য যে আপনাকে ভাল কোন ভার্সিটিতে পড়তে হবে না পরলে চাকুরি পাবেন না ব্যাপারটা আসলে এমন না, আপনি সরকার অনুমোদিত যে কোন প্রাইভেট ভার্সিটি থেকে বা জাতীয় ভার্সিটি থেকে পড়াশুনা করলেই হবে । কারন আমরা যদি বিসিএস এর পরিসংখান দেখি তাহলে দেখতে পাব যে এখন ৬০% স্টুডেন্ট ন্যাশনাল ভার্সিটি থেকে বিসিএস এর ক্যাডার হচ্ছে ।

৩ – বর্তমান সময়ে চাকুরির সার্কুলারে প্রায়ই উল্লেখ থাকে যে শিক্ষা জীবনে কোন পর্যায়ে ৩য় শ্রেণীর কোন ড্রিগি থাকলে তিনি এপ্লাই করতে পারবে না । ৩য় শ্রেনি বা বিভাগ হল ৫ গ্রেডিং স্কেলে ২ এর নিচে পাওয়া কোন পয়েন্ট , আমার মনে হয় যে ৫ এর ভিতর যে ২ পয়েন্ট পায় না তার সরকারি চাকুরি করার কোন যোগ্যতাই নেই ।
বাংলাদেশ সরকার ২০১০ সালের গ্রেডিং সিস্টেমের নিয়ম অনুযায়ী
৫ পয়েন্ট এর ভিতরে ৩ হল ফাস্ট ক্লাস , ২.০১ থেকে ২.৯৯ হল সেকেন্ড ক্লাস ও ১-১.৯৯ হল থার্ড ক্লাস । তাই আমার মনে হয় এটা অনেক সহজ একটা সিস্টেম এবং সবারই প্রায় ফাস্ট ক্লাস থাকে ।
৪ – সরকারি চাকুরি করার জন্য আপনাকে পড়াশুনা করতে হবে , শুধু মাত্র ঘুষ দিয়ে বা লিংক ধরে চাকুরি নেবার দিন শেষ । এই সময়ে সরকারি চাকুরি করার জন্য আপনাকে অল স্কয়ার হতে হবে মানে সব জায়গাতেই টিকতে হবে । তবে হ্যা যদি আপনার আত্মীয় স্বজন মন্ত্রী , এমপি , সচিব থাকে তাহলে সে কথা ভিন্ন ।
৫ – আপনার যদি সরকারি চাকুরি এর পরিক্ষায় পাশ করার মত মেধা থাকে , ভাল মানের লিংক থাকে, ও ঘুষ দেবার মন মানসিকতা থাকে তাহলে আপনি সরকারি চাকুরির জন্য যে জায়গাতে এপ্লাই করবেন সে জায়গায় আপনার চাকুরি ৯০-৯৫% ই কনফার্ম ।
৬ – এখনো ঘুষ ও লিংক ছাড়া শুধু মেধা জোরেও চাকুরি হয় তবে সে ক্ষেত্রে আপনাকে অসাধারন হতে হবে , আর এখনো ১০০% এর ভিতরে ৩০-৪০% নিয়োগ শুধু মেধার যোগ্যটায় হয় ।
৭ – সরকারি চাকুরি করার জন্য আপনি প্রথমে বিসিএস দিয়ে শুরু করতে পারেন । আপনার লক্ষ যদি হয় ১৪ মাইল তাহলে আপনি ১৪ মাইল না হোক ১০ মাইলতো অন্তত যেতে পারবেন । বিসিএস হল বাংলাদেশের সব থেকে কম্পিটিশন এক্সাম , আপনি যদি এই এক্সামের জন্য প্রিপারেশন নেন তাহলে অন্য চাকুরির জন্য ও আপনার প্রিপারেশন অটো হয়ে যাবে ।
৮ – সরকারি চাকুরি করার ইচ্ছে থাকলে গ্রাজুয়েশন এর পর পর ই প্রিপারেশন নেয়া উচিত । তবে পড়ার ক্ষেত্রে পিএস সি এর সিলেবাস ফলো করা উচিত ,যেমন বাংলা সাহিত্য , বাংলা গ্রামার , ইংরেজি গ্রামার , সাধারন গনিত , বিজ্ঞান, সাধারন জ্ঞান, মানসিক দক্ষতা ।

এবার আসুন দেখি ভাল কোন মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিতে চাকুরি করার জন্য আপনাকে কি যোগ্যতা অর্জন করতে হবে

১ – প্রথমে আপনাকে ভাল মানের কোন ভার্সিটি থেকে পাশ করতে হবে , সেটা যদি হয় ঢাকা ইউনিভার্সিটি, বুয়েট,চুয়েট, রাজশাহি ইউনিভার্সিটি, খুলনা ইউনিভার্সিটি , কুয়েট তাহলে আপনি অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকবেন । এবং আপনাকে মিনিমাম সিজিপিএ ৩.০ পেতে হবে ৪ এর ভিতরে ।
২- আপনার একাডেমিক ব্যাকগ্রাউন্ড যদি সাইন্স , ইঞ্জিনিয়ারিং হয় এবং এর পরে এম বি এ অথবা আই বি এ করতে পারেন তাহলে আপনি যে কোন ভাল মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে চাকুরি করতে পারবেন ।
৩ – যদি আপনার কোম্পানির চাকুরি করে ক্যরিয়ার ডেভলপ করার ইচ্ছে থাকে তাহলে অনার্স, ডিপ্লোমা বা বি এস সি ইঞ্জিনিয়ারিং এর পর পর ই যে কোন ইন্ড্রাস্টিয়াল লেভেলের অথবা কোন কর্পোরেট লেভেলের জবে জয়েন করা উচিত কারন আপনি কর্পোরেট জবে সব সময় এক্সপেরিয়ান্স চায় । আপনার যদি এম বি এ করার পরে ২-৩ বছরের চাকুরির এক্সপেরিয়ান্স থাকে তাহলে আপনি অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকবেন ।
৪ – মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি জব করতে হলে অবশ্যই আপনাকে নিম্নলিখিত যোগ্যতা থাকতে হবে
– আপনাকে আপনার উপস্থাপনা করা জানতে হবে, আপনি কি জানেন সেটা যদি কাউকে না ই বোঝাতে পারেন তাহলে কোম্পানি এর চাকরি আপনার জন্য না ।
– আপনাকে অবশ্যই ইংরেজি এক্সপার্ট হতে হবে , কথার মাঝে যদি ২-৩ টা ইংরেজি না ই বলতে পারেন তাহলে আপনি এই যুগে স্মার্ট হলে বিবেচিত হবে না ।
– আপনাকে কম্পিউটারে বা আইটিতে এক্সপার্ট হতে হবে ।
– সর্বোপরি আপনাকে স্মার্ট হতে হবে ।
( আপনি যদি ইংরেজি, কম্পিউটার এবং প্রেজেন্টশন করার মত দক্ষতা আপনার থাকে তাহলে যে কোন চাকুরিতে আপনি অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকবেন )
৫ – আপনি যদি ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে এম বি এ অথবা আইবি এ, খুলনা ইউনিভার্সিটি, চিটাগাং ইউনিভার্সিটি , জাহাঙ্গীর নগর থেকে এম বি এ করতে পারেন তাহলে হয়ত কোন এক্সপেরিয়ান্স ছাড়াই প্রথমেই বেশ ভাল মানের চাকুরি পেতে পারেন ।
৬ – আপনার একাডেমিক ব্যাক গ্রাউন্ড যদি টেকনিক্যাল বা ইঞ্জিনিয়ারিং হয় এবং নতুন কিছু উদ্ভাবন করার ক্ষমতা আপনার মধ্য থাকে এবং সেটা যদি পেজেন্টেশন করতে পারেন তাহলে যে কোন ভাল কোম্পনিতে আপনাকে এমনিতে নিয়ে নিবে ।
৭ – আর যদি ভাল কোন কোম্পানিতে আপনার মামা খালু থাকে তাহলে তো কোন কথাই নেই , শুধু এম বি এ টা কম্পিলিট করেন এবং চাকুরিতে জয়েন করেন ।

এখন সিদ্ধান্ত টা আপনার কি করবেন আপনি , সরকারি চাকুরি না প্রাইভেট মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির জব । সরকারি কর্মকর্তা হলে আপনি যে সম্মান পাবেন সেটা একটা প্রাইভেট কোম্পানির মালিক হলেও হয়ত সেটা পাবেন না । যদি আপনার প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকুরি করে ক্যারিয়ার ডেভলপ করার ইচ্ছা থাকে তাহলে এখন থেকেই নিজের স্কিল ডেভলপ করার চেস্টা করুন আর যদি সরকারি চাকুরি করার ইচ্ছা থাকে তাহলে গ্রাজুয়েশনের কম্পিলিট করার আগ থেকেই প্রস্তুতি নিন । এটা করলে হয়ত আপনি অন্যদের থেকে কিছুটা হলেও এগিয়ে থাকবেন । আসলে আমরা সবাই ই চাই সরকারি চাকুরি করতে কিন্তু সেই অনুযায়ী পরিশ্রম করতে চাই না , শুধু একটা কথা চিন্তা করে দেখুন লাইফের ৩০ টা বছর আপনি সম্মানের সহিত কাটাতে পারবেন যদি সরকারি কর্মকর্তা হন । ৩০ টা বছর আরামে থাকার জন্য মাত্র ৬ টা মাস কস্ট করতে পারবেন না ?

1 2 3 25