হাজার কোটি টাকা মূলধন ফিরে পেল ডিএসই

গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসের (১৭-২০ ডিসেম্বর) মধ্যে তিন কার্যদিবস দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক বেড়েছে। এতে সপ্তাহটিতে এক হাজার কোটি টাকর ওপরে বাজার মূলধন ফিরে পেয়েছে ডিএসই।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৮০ হাজার ৯৫৭ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল তিন লাখ ৭৯ হাজার ৮২২ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে এক হাজার ১৩৫ কোটি টাকা।

এদিকে গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ১৪ দশমিক ৩০ পয়েন্ট বা দশমিক ২৭ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ৮১ দশমিক ৭৯ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৫৩ শতাংশ।

অপর দুটি সূচকের মধ্যে গত সপ্তাহে ডিএসই-৩০ আগের সপ্তাহের তুলনায় কমেছে এক দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ১৮ দশমিক ৭১ পয়েন্ট বা এক শতাংশ।

আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক বেড়েছে দুই দশমিক ৫৯ পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ১৭ দশমিক ৪১ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৪২ শতাংশ।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে ১৭৬টির দাম আগের সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। অপরদিকে কমেছে ১৩৫টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির দাম।

এদিকে সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৩৭৭ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৫১১ কোটি টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন কমেছে ১৩৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা বা ২৬ দশমিক ১৫ শতাংশ।

আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৫০৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় দুই হাজার ৫৫৫ কোটি দুই লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন কমেছে এক হাজার ৪৫ কোটি ৫৮ লাখ টাকা বা ৪০ দশমিক ৯২ শতাংশ।

গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৮৬ দশমিক ৩৩ শতাংশই ছিল ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দখলে। এ ছাড়া বাকি চার দশমিক ২৮ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ছয় দশমিক ৮৫ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের এবং দুই দশমিক ৫৪ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশনের শেয়ার। কোম্পানিটির ৫০ কোটি ৯০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের তিন দশমিক ৩৭ শতাংশ।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৯ কোটি ৩৪ লাখ টাকা, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের দুই দশমিক ৬১ শতাংশ। ৩৮ কোটি ২৭ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে খুলনা পাওয়ার কোম্পানি।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- মেঘনা লাইফ, জেএমআই সিরিঞ্জ, ব্র্যাক ব্যাংক, ইনটেক লিমিটেড, ইফাদ অটোস, আনলিমা ইয়াং ডাইং এবং রূপালী লাইফ ইনস্যুরেন্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published.