লিচুর ফল ঝরা রোগ দূর করার ম্যাজিক টিপস

বাংলাদেশে সবত্রই কম-বেশী লিচুর চাষ হয়।  বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে লিচুর চাষ হয় এবং মোট উৎপাদন প্রায় ১৩ হাজার মেট্রিক টন তা আমাদের চাহিদার মাত্র এক চতুর্থাংশ পূরণ করে। লিচু টাটকা ফল হিসেবে বাংলাদেশের সর্বত্র অত্যন্ত জনপ্রিয়।

লিচুতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি, সি, খনিজ লবন ও ক্যালসিয়াম বিদ্যামান। আমাদের দেশে লিচুর অনেক রোগ বালাই দেখা যায়। লিচুর এ রোগসমূহ দমন করতে পারলে লিচুর উৎপাদন অনেকাংশে বৃদ্ধি কর সম্ভব। লিচুর মারাত্মক একটি রোগের কারণ ও এর প্রতিকার ব্যবস্থা আলোচনা করা হল

ফল ঝরা (Fruit dropping) রোগ

রোগের কারণঃ ছত্রাক, খরা ও শারীরবৃত্তীয় কারণে এ রোগ হয়ে থাকে।

রোগের বিস্তারঃ ফল ঝরা লিচুর সাধারণ সমস্যা। দীর্ঘ সময় আবহাওয়া শুষ্ক হলে বা গাছে হরমোনের অভাব থাকলে ফল ঝরে পড়তে পারে।

রোগের লক্ষণঃ

ফল ধরার পর থেকে শুরু করে ফল পরিপক্কতা হওয়া পর্যন্ত ফল ঝরা চলতে থাকে।
ফল বাদামী থেকে কাল রং ধারণ করে।
গুটি অবস্থায় ফল ঝরে পড়ে অর্থাৎ ফল ধরার ২-৪ সপ্তাহ সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশী ফল ঝরে।

রোগের প্রতিকারঃ

শুষ্ক আবহাওয়া বিরাজ করলে সেচের ব্যবস্থা করতে হবে।
মাটিতে জৈব সার সহ সুষম সার প্রয়োগ করতে হবে।
ফল মটর দানা এবং মার্বেল আকার অবস্থায় প্ল্যানোফিক্স অথবা মিরাকুলান প্রতি ৪.৫ লিটার পানিতে ২ মিলি হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।
গুটি বাধার পর জিংক সালফেট প্রতি লিটার পানিতে ১০ গ্রাম হারে মিশিয়ে পর পর ৩ সপ্তাহ গাছে স্প্রে করলে ফল ঝরা ও ফল ফাটা বন্ধ হয় এবং ফলের আকৃতিও বড় হয়। রোগ ও পোকার আক্রমণ প্রতিহত করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.