মুষ্টিমেয় লোকের হাতে সম্পদের পাহাড়

স্টাফ রিপোর্টার

দেশে অবকাঠামোগত অনেক কর্মকাণ্ড চলছে। তবে করোনার কারণে দেশের শ্রেণিকাঠামোয় যে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটছে, বিপজ্জনকভাবে যে বৈষম্য ও বহুমাত্রিক দারিদ্র্য বাড়ছে, তা সমাধানে সরকারের দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। মুষ্টিমেয় ব্যক্তির কাছে অগাধ টাকা ও সম্পদের পাহাড় গড়ে উঠছে, অন্যদিকে বাড়ছে দারিদ্র্য।

বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির দুই দিনব্যাপী ২১তম দ্বিবার্ষিক সম্মেলন শুরু হচ্ছে আগামীকাল শুক্রবার (২৩ ডিসেম্বর)। সম্মেলনের বিস্তারিত জানাতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত এসব কথা বলেছেন।

বুধবার (২২ ডিসেম্বর) সমিতির ইস্কাটন কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

ড. বারকাত বলেন, একদিকে মুষ্টিমেয় ব্যক্তির কাছে অগাধ টাকা ও সম্পদের পাহাড় গড়ে উঠছে। অন্যদিকে দরিদ্র মানুষ ক্রমশ দরিদ্রতর হচ্ছে। দরিদ্রদের ভাগ্য পরিবর্তনের কাজে দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি হয়নি। করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের শ্রেণিকাঠামোয় ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। শহর থেকে ১ কোটি মানুষ উল্টো অভিবাসনে গ্রামে যেতে বাধ্য হয়েছে। সমাজের সব ক্ষেত্রেই বৈষম্য চরম রূপ নিয়েছে। বহুমাত্রিক দারিদ্র্যের হার চরম অবস্থায় পৌঁছে গেছে।

তিনি আরও বলেন, এ সময়ে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত অনানুষ্ঠানিক খাতের দরিদ্র মানুষ তেমন কোনো প্রণোদনা ও সহায়তাই পায়নি। পক্ষান্তরে ধনীদের দেওয়া প্রণোদনার অর্থের স্বল্প সুদের মেয়াদ আরও বাড়ানোর জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে। দ্রব্যমূল্যর ঊর্ধ্বগতির কারণে সাধারণ মানুষ ভীষণ সংকটে রয়েছে। ব্যাংকিং খাতে জবাবদিহি নেই, গণতন্ত্র বিপর্যস্ত, বাকস্বাধীনতা কমে আসছে। এমন অবস্থা ভবিষ্যতে দেশে বড় ধরনের সংকট বয়ে আনতে পারে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক ড. জামাল উদ্দিন আহমেদ ও এ জেড এম সালেহসহ কার্যকরী কমিটির সদস্যরা।

অর্থনীতি সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এবারের সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য ‌‘মহামারি কোভিড-১৯ এর প্রভাব অভিঘাত ও মানব উন্নয়ন’।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও উদ্বোধক থাকবেন বাংলাদেশের প্রথম পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ও অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক রেহমান সোবহান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত।

বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির কার্যনিবাহক কমিটি মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে অর্থনীতিশাস্ত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে অধ্যাপক ড. আবুল বারকাতকে ‘মুজিব স্বর্ণপদক’ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দুই দিনব্যাপী সম্মেলনের ১টি বিশেষ প্লেনারি সেশন ও ৮টি কর্ম অধিবেশনসহ সমিতির কার্যনির্বাহক কমিটির সাধারণ সভা ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ‘কোভিড-১৯ থেকে শোভন সমাজ’ শীর্ষক বিশেষ প্লেনারি অধিবেশনটি উৎসর্গ করা হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমেদের সভাপতিত্বে এতে একক বক্তা থাকবেন অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত। বিশেষ প্লেনারি সেশন ও কর্ম-অধিবেশনগুলোতে সভাপতি হিসেবে দেশের প্রাজ্ঞ অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ, অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত, ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. এম এ সাত্তার মণ্ডল, ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক ড. আবদুল বায়েস, অধ্যাপক ড. শফিক উজ জামান, অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজুর রহমান এবং রাষ্ট্রদূত এম. আব্দুল হান্নানের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

সম্মেলনে ৮৪টি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হবে। সারাদেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে প্রায় পাঁচ হাজার অর্থনীতিবিদ সম্মেলনে যোগ দেবেন। রাজধানীর কাকরাইলে রমনার ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্সে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.