বাস দুর্ঘটনায় ঘানায় ৬ ফুটবলারের মৃত্যু

ঘানার একঝাঁক তরুণ ফুটবলার চলছিল নতুন স্বপ্নের পথে। নতুন মৌসুমে খেলবে বলে একসঙ্গে যাচ্ছিল রেজিস্ট্রেশন করতে। সেই কাজ শেষ করেছে সুন্দর ভাবেই। তবে এরপরই স্বপ্নের অপমৃত্যু। ৩৬ তরুণ ফুটবলারকে নিয়ে নদীতে আছড়ে পড়ে বাস। সেখানেই মৃত্যুর মুখে পতিত হন ৬ জন।

ঘানা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (জিএফএ) পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে এসব তরুণ ফুটবলারদের মৃত্যুর খবর। শনিবার কোল্টস লিগে রেজিস্ট্রেশনের জন্য আফ্রাঞ্চোতে গিয়েছিলেন আফ্রিকান ভিশন একাডেমির ৩৬ জনের দল। সেখান থেকে অফিনসোতে ফেরার পথে আশান্তি অঞ্চলের কুমাসি-অফিনসো সড়কে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে তাদের বাসটি।

নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সঙ্গে সঙ্গে গভীর নদীতে পড়ে যায় তরুণ ফুটবলারদের বহনকারী সেই বাস। দুর্গম জায়গায় বাসটি দুর্ঘটনার শিকার হওয়ায় উদ্ধারকাজে বেশ সমস্যায় পড়তে হয়। আর তখন ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ৬ ফুটবলার। পরে হাসপাতালে নেয়া হলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আরও একজনের মৃত্যু হয়। এছাড়া গুরুতর আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন।

শনিবার রাতে জিএফএ’র ওয়েবসাইটে এ ঘটনার কথা জানিয়ে আনুষ্ঠানিক বিবৃতির মাধ্যমে শোকপ্রকাশ করা হয়। পরে রোববার দেশটির ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের কর্তাব্যক্তিরা আহত ফুটবলারদের সবশেষ অবস্থা দেখতে হাসপাতালে যান। জানা গেছে, মৃত ফুটবলারদের সবার বয়স ১২ থেকে ১৬’র মধ্যে।

অফিনসো ট্রাফিক বিভাগের কমান্ডার এডমুন্ড নিয়ামেকে সংবাদমাধ্যমে বলেছেন, ‘আমাদের প্রাথমিক তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, বাসটি পুরোটাই ফুটবলারদের দিয়ে ভরা ছিল। যারা একটি লিগে (রেজিস্ট্রেশন) অংশ নিয়ে ফিরছিল। অফিন নদীর কাছাকাছি আসতে অতিরিক্ত গতির কারণে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে এবং বাসটি নদীতে পড়ে যায়।’

যদিও এক ভিডিওতে দেখা যায়, বাসের টায়ার ফেটে যাওয়াতে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নদীতে পড়ে যায়। নিয়ামেকে দুর্ঘটনার শিকার ফুটবলারদের নিয়ে যোগ করেন, ’১২ থেকে ১৬ বছর বয়সী ৬ জন জায়গায় মৃত্যুবরণ করেন। বাকী ৩০ জনকে নিকটস্থ সেন্ট প্যাট্রিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। তবে তাদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *