‘বাংলাদেশের সেরা ব্যাংকে’র স্বীকৃতি পেলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

স্টাফ রিপোর্টার

 ‘বাংলাদেশের সেরা ব্যাংকে’র আবারো স্বীকৃতি পেলো স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড। অ্যাসেট ট্রিপল এ সাস্টেইনেবল ক্যাপিটাল মার্কেটস কান্ট্রি অ্যাওয়ার্ডস ২০২১ থেকে সম্প্রতি হিসেবে টানা দ্বিতীয়বারের মতো এই স্বীকৃতি পেয়েছে ব্যাংকটি। এছাড়া ২০২১ সালে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক মোট ৩১টি বিশেষ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে। সোমবার (২৩ জানুয়ারি, ২০২২) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

বাৎসরিক এই অ্যাসেট ট্রিপল এ স্বীকৃতি পাওয়া ব্যাংকিং, ফাইন্যান্স, ট্রেজারি এবং ক্যাপিটাল মার্কেটের ক্ষেত্রে অনেক মর্যাদাপূর্ণ একটি অর্জন। এশিয়ান ইস্যুকারী এবং বৈশ্বিক প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মধ্যে যেসব আর্থিক মাল্টি-মিডিয়া গ্রুপ তাদের বিদ্যমান সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করে, তারাই এই সম্মাননা পাওয়ার জন্য নির্বাচিত হয়। দেশীয় বাজারে কার্যকলাপের উপর ফোকাস করে গত বিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে দ্য অ্যাসেট ট্রিপল এ কান্ট্রি অ্যাওয়ার্ডস কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।

 এই অর্জন সম্পর্কে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক-এর সিইও নাসের এজাজ বিজয় বলেন, “বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ থাকা সত্ত্বেও যেভাবে আমরা সকল বাধা অতিক্রম করে সফলতার দারপ্রান্তে পৌঁছেছি, এই অ্যাওয়ার্ড তারই প্রমাণস্বরূপ। আমরা একসাথে আমাদের ক্লায়েন্ট ও জনসাধারণের পাশে থেকে শক্তি ও স্থিতিস্থাপকতার সঠিক পরিচালনা করেছি। এই অর্জনকে সম্ভব করার জন্য আমি আমাদের ক্লায়েন্ট, নিয়ন্ত্রক এবং বৃহত্তর ইকোসিস্টেমকে ধন্যবাদ জানাতে চাই।

দীর্ঘ ১১৭ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশে নিরবচ্ছিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকই দেশের একমাত্র বহুজাতিক ব্যাংক, যার রয়েছে বাংলাদেশে দৃঢ় স্থানীয় উপস্থিতি এবং এর বৈশ্বিক পরিধি ও পণ্য কাজে লাগানোর সক্ষমতার অনন্য এক সংমিশ্রণ। বাংলাদেশে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের একজন হিসেবে ব্যাংকটি নিজেই দেশে বিদেশী বিনিয়োগ নিয়ে আসা এবং বিদেশী বিনিয়োগকে সহজ করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। গত বছরের মতো এই বছরেও আমদানি-রপ্তানি অর্থায়নে একটি বড় অংশ অর্জন এবং বিদেশী ব্যাংকগুলো থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে অর্থায়ন ও এসএমই ঋণ প্রদানে ভূমিকা রেখেছে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড। একইসাথে কার্ডের মাধ্যমে ব্যয় ও ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের ব্যবহার বৃদ্ধি এবং অসংখ্য উদ্ভাবনী পণ্য বাজারে আনার মাধ্যমে রিটেইল ফাইন্যান্সিংয়ে শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বছরের পর বছর ধরে, দেশের জন্য প্রথম গ্রিন বন্ড, প্রথম গ্রিন জিরো-কুপন বন্ড এবং প্রথম টেকসই ট্রেড ফাইন্যান্স লেনদেন সহ বেশ কয়েকটি সুবিধা নিয়ে আসতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।

 প্রণোদনা প্যাকেজের নীতি হওয়ার আগ থেকে ব্যাংকটি তার ক্লায়েন্টদের অর্থ পরিশোধের সময়সূচী নিয়ে উল্ল্যেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে। ব্যাংকটি লোন এক্সটেনশন-এর সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে তাদের ক্লায়েন্টদের বেতন ও মজুরী পরিশোধের সুবিধা করে দেয়। এছাড়া ব্যাংকটি ডিজিটাল ওয়েজ পেমেন্ট-এর প্রচলন করে এবং এই অনিশ্চয়ক পরিস্থিতিতে বিভিন্ন ব্যবসায়ের সুবিধার্থে ইউনিক ফাইন্যান্সিং প্রোগ্রাম চালু করে।  

 স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক করোনা আক্রান্ত মানুষদের জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান এবং প্রথমসারীর কর্মীদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে অংশগ্রহণ করার জন্য নানা উদ্যোগ নিয়েছ। এছাড়া ব্যাংকটি কোভিড-১৯ মহামারিতে জীবিকা হারানো মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছে। আর্থিক ভাবে বিপর্যস্ত সেই সকল মানুষদের জন্য বিভিন্ন দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচি গ্রহণ করে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক দেশের জনবলের দীর্ঘমেয়াদী পুনরুদ্ধার করতে অবদান রেখেছে।  

Leave a Reply

Your email address will not be published.