ফুলেফেঁপে উঠছে মুকেশ আম্বানির ব্যবসা

স্টাফ রিপোর্টার

ইউক্রেনে হামলার পর যখন খাদ্যপণ্য ও জ্বালানি সংকটে পড়েছে বিশ্ব। পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞায় রাশিয়া থেকে পণ্য আমদানি কমিয়ে আনছে বিভিন্ন দেশ। যদিও মার্কিন রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেই রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আমদানি অব্যাহত রেখেছে ভারত। ফলে এ যুদ্ধের ফলে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ফুলেফেঁপে উঠছে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান রিলায়েন্সের জ্বালানি তেল পরিশোধনের ব্যবসা। এতে বিলিয়নেয়ার মুকেশ আম্বানির প্রতিষ্ঠান পকেটে ভরছে বিপুল অংকের অর্থ। খবর ফ্রিমালয়েশিয়াটুডে।

ইউক্রেনে হামলার প্রভাবে দাম বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে রাশিয়া থেকে আরো বেশি জ্বালানি আমদানি করতে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড বিশ্বের সর্ববৃহত্ জ্বালানি তেল শোধনাগারের রক্ষণাবেক্ষণ কার্যক্রম পিছিয়ে দিয়েছে। ইউরোপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রাশিয়ার জ্বালানি ক্রয়ের ক্ষেত্রে নিজেদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির পর ভারতের বিলিয়নেয়ার মুকেশ আম্বানির মালিকানাধীন এ শোধনাগারটি কম মূল্যে অপরিশোধিত জ্বালানি কিনছে।

রিলায়েন্স দুটি শোধনাগারে দৈনিক ১৪ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল পরিশোধন করতে সক্ষম। প্রতিষ্ঠানটির জয়েন্ট চিফ ফাইনান্সিয়াল অফিসার ভি শ্রীকান্ত শুক্রবার এক ব্রিফিংয়ে বলেন, আমরা আরবিট্রেজ ব্যারেল সোর্সিং করে ফিডস্টক খরচ কমিয়েছি। ভারতের জ্বালানি তেল শোধনকারীরা ভ্লাদিমির পুতিন সরকারকে একঘরে করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের না নেয়া জ্বালানি তেল গ্রহণ করছে। বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ তেল আমদানিকারী দেশটির সরকারি-বেসরকারি পরিশোধন প্রতিষ্ঠানগুলি গত ফেব্রুয়ারির পর থেকে ৪ কোটি ব্যারেলের বেশি রাশিয়ার অপরিশোধিত জ্বালানি তেল কিনেছে।

কোম্পানির একটি প্রেজেন্টেশনে বলা হয়, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে ডিজেলে মার্জিন বেড়েছে ৭১ শতাংশ। এছাড়া গ্যাসোলিনে ১৭ শতাংশ এবং ন্যাপথার বেড়েছে ১৮ দশমিক ৫ শতাংশ।

মুম্বাইভিত্তিক প্রতিষ্ঠান রিলায়েন্সের মোট আয়ের ৬০ শতাংশ আসে জ্বালানি তেল থেকে। ৩১ মার্চ শেষ হওয়া প্রান্তিকে রিলায়েন্সের নিট আয় ২২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ২০০ কোটি রুপি বা ২১০ কোটি ডলারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.