কোবার্গের জন্য ১২০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করছে এসকম

আফ্রিকার একমাত্র ও প্রাচীনতম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র কোবার্গ নিউক্লিয়ার পাওয়ার স্টেশন। ১৯৮৪ সালে বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করা বিদ্যুৎকেন্দ্রটির আয়ু ২০২৪ সালে শেষ হওয়ার কথা। তবে এর মেয়াদ আরো বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে এর মালিক দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রায়ত্ত বিদ্যুৎ কোম্পানি এসকম হোল্ডিংস। এ লক্ষ্যে এরই মধ্যে ১২০ কোটি ডলার বিনিয়োগ শুরু করে দিয়েছে তারা। খবর ব্লুমবার্গ।

এ বিনিয়োগের আওতায় কোবার্গ প্লান্টে ছয়টি নতুন স্টিম জেনারেটর স্থাপন করা হবে। অবশ্য নিউক্লিয়ার সেফটি রেগুলেটরের অনুমোদন এখনো পায়নি এসকম। কোম্পানিটি আশা করছে, শিগগিরই এ অনুমোদন পেয়ে যাবে তারা। নতুন জেনারেটর স্থাপন হলে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির আয়ু চলতি শতকের মাঝামাঝি পর্যন্ত বেড়ে যাবে।

এসকম কোবার্গ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সুরক্ষা নিয়ে কাজ করা বেশ কয়েকটি গ্রুপ। এ উদ্বেগের অবশ্য কারণও রয়েছে। ১৯৭৬ সালে যখন বিদ্যুৎকেন্দ্রটির নির্মাণকাজ শুরু হয়, তখন এর অবস্থান ছিল কেপটাউনের জনবসতি থেকে বেশ দূরে। কিন্তু প্রত্যাশাতীত নগরায়ণের কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোয় কেপটাউন মেট্রোপলিটন এরিয়া এখন বিদ্যুৎকেন্দ্রটির অনেক কাছাকাছি চলে এসেছে। এ অবস্থায় কোবার্গে বিদ্যুৎ উৎপাদন চালিয়ে নেয়া কতটা নিরাপদ হবে, সে বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে গ্রুপগুলো।

কিন্তু এসকম নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল। এক বিবৃতিতে কোম্পানিটি জানিয়েছে, ‘এখনো অনেক কাজ বাকি রয়েছে। তবে আশা করছি, বর্ধিত মেয়াদে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির কার্যক্রম চালিয়ে নেয়ার অনুমোদন পাব আমরা। এ কারণেই বৃহৎ যন্ত্রাংশ প্রতিস্থাপনে আমরা বিনিয়োগ করছি।’

কোবার্গে বিদ্যুৎ উৎপাদনে এখন পর্যন্ত কোনো বিঘ্ন ঘটেনি। তবে বয়সের ভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটির ভবিষ্যৎ নিয়ে বেশ উদ্বেগে রয়েছে এসকম। দক্ষিণ আফ্রিকার মোট বিদ্যুৎ চাহিদার ৪ শতাংশ পূরণ হয় ১ হাজার ৮০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন এ বিদ্যুৎকেন্দ্রের মাধ্যমে। এ অবস্থায় কোবার্গ কোনো কারণে অচল হয়ে পড়লে দেশটিতে বিদ্যুৎ সরবরাহে বিঘ্ন ঘটবে। এ কারণেই কোবার্গের মেয়াদ বাড়াতে নতুন জেনারেটর বসাচ্ছে তারা। এর মাধ্যমে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি আরো অন্তত দুই দশক নিরবচ্ছিন্ন উৎপাদনে থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এসকমের এ উদ্যোগের বিরোধী পক্ষের মধ্যে রয়েছে কোবার্গ অ্যালার্ট অ্যালায়েন্স। সংগঠনটির প্রতিনিধি পিটার বেকার বলেছেন, ‘এ পদক্ষেপের কোনো অর্থনৈতিক যুক্তি নেই। কারণ এসকম এমন একটি বিদ্যুৎকেন্দ্রে নতুন করে অর্থ ঢালছে, যার বয়স শেষ হওয়ার উপক্রম। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, এসকম দক্ষিণ আফ্রিকার ন্যাশনাল নিউক্লিয়ার রেগুলেটরকেই চাপে রেখেছে। কোবার্গের মেয়াদ বৃদ্ধির অনুমোদন না দিয়ে নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের সামনে আর কোনো পথ খোলা নেই।’ মূলত কেপটাউন ও কোবার্গের মধ্যে ব্যবধান কমে যাওয়ায় সেখানকার জনজীবনের সুরক্ষা সংকট ও ভূমিকম্পের সম্ভাব্যতার কথা মাথায় রেখেই এই বিরোধিতা করছে কোবার্গ অ্যালার্ট অ্যালায়েন্স।

গত মাসে এসকম জানায়, ফ্রান্সের ফ্রামাটোমের কাছ থেকে তারা ছয়টি স্টিম জেনারেটর কিনছে তারা, যার প্রথমটি সরবরাহের প্রক্রিয়া এরই মধ্যে শুরু হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *