উগান্ডার কফি রফতানি ৩০ বছরের সর্বোচ্চে

স্টাফ রিপোর্ট

গত বছর করোনা মহামারীর ধাক্কায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে কফির বৈশ্বিক রফতানি বাজার। কিন্তু এ পরিস্থিতির মধ্যেই উগান্ডা পানীয় পণ্যটি রফতানিতে বড় ধরনের সাফল্য অর্জন করে। ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশটি ৩০ বছরের সর্বোচ্চ কফি রফতানি করেছে। উগান্ডা কফি ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (ইউসিডিএ) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।

সংস্থাটির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০২০-২১ অর্থবছরে উগান্ডা সব মিলিয়ে ৫৫ কোটি ৯২ লাখ ৬০ হাজার ডলার মূল্যের ৬১ লাখ ব্যাগ (প্রতি ব্যাগে ৬০ কেজি) কফি রফতানি করেছে। এর আগের অর্থবছর রফতানি হয় ৫১ লাখ ৫ হাজার ৮৮১ ব্যাগ, যার বাণিজ্যিক মূল্য ৪৯ কোটি ৬২ লাখ ৮০ হাজার ডলার।

ইউসিডিএ এক নোটে জানায়, কফির বৈশ্বিক বাজার চাঙ্গা। পাশাপাশি পণ্যটির উৎপাদনের জন্য আবহাওয়া বেশি অনুকূলে ছিল। এসব কারণে রফতানিতে বড় পরিসরে প্রবৃদ্ধি এসেছে। আবাদ বৃদ্ধি পাওয়ায় ২০২১-২২ অর্থবছরেও রফতানি বাড়বে।

চলতি বছরের জুনে উগান্ডায় ২০২০-২১ অর্থবছর শেষ হয়েছে। অর্থবছরের শেষ মাসে দেশটি সব মিলিয়ে ৬ লাখ ১৮ হাজার ৩৮৮ ব্যাগ কফি রফতানি করে। রফতানীকৃত এসব কফি থেকে আয় এসেছে ৫ কোটি ৮৫ লাখ ৬০ হাজার ডলার। মাসভিত্তিক হিসাবে এটি ১৯৯১ সালের পর রেকর্ড সর্বোচ্চ রফতানি।

ইউসিডিএর তথ্য অনুযায়ী, সদ্য বিদায়ী অর্থবছরের শেষ মাসে কফি রফতানির পরিমাণ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে ৪৭ দশমিক ৪ শতাংশ। পানীয় পণ্যটির রফতানি আয় ৪৬ দশমিক ৬৩ শতাংশ বেড়েছে।

জুনে রফতানীকৃত কফির মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে রোবাস্তা। এ সময় ৫ কোটি ২ লাখ ৫০ হাজার ডলারের ৫ লাখ ৬৫ হাজার ৪৪৯ ব্যাগ রোবাস্তা রফতানি হয়। রফতানীকৃত বাকি ৫২ হাজার ৯৩৯ ব্যাগ অ্যারাবিকা কফি। এসব কফির মূল্য ৮৩ লাখ ১০ হাজার ডলার।

ইউসিডিএ জানায়, ২০২৫ সাল নাগাদ দুই কোটি ব্যাগ কফি বিশ্ববাজারে সরবরাহের পরিকল্পনা রয়েছে উগান্ডার। লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছে সংস্থাটি। এক্ষেত্রে চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন দেশের সঙ্গে নির্দিষ্ট মেয়াদে চুক্তি করা হবে।

এক নোটে ইউসিডিএ জানায়, চীনের বাজারে নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে এরই মধ্যে দেশীয় কফির প্রচারণা সম্পন্ন করেছে সংস্থাটি। পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের বাজার ধরতে গত মে মাসে বাজারসংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে রফতানির পাশাপাশি উৎপাদন বাড়াতেও নানা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ইউসিডিএ। গত মাসে সংস্থাটি নয়টি জেলার পাঁচ হাজারেরও বেশি চাষীকে প্রণোদনা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *