ইস্পাত উৎপাদন ৭ শতাংশ পর্যন্ত বাড়াতে পারে চীন

স্টাফ রিপোর্ট

চলতি বছর ৪ শতাংশ থেকে ৭ শতাংশ পর্যন্ত ইস্পাত উৎপাদন বাড়াতে পারে চীন। ফলে পরিবেশ দূষণসংক্রান্ত অঙ্গীকার পূরণ থেকে সরে আসার সম্ভাবনা রয়েছে দেশটির। গতকাল বিশ্বব্যাপী ইস্পাত উৎপাদকদের স্যাটেলাইট চিত্রের ওপর প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এসব তথ্য জানা যায়। খবর এসঅ্যান্ডপি গ্লোবাল প্ল্যাটস।

সম্প্রতি চীন সরকার ঘোষণা দেয় যে, তারা চলতি বছর নিজেদের অপরিশোধিত ইস্পাত উৎপাদনের মাত্রা ২০২০ সালের স্তরে নিয়ে আসবে। পরিবেশে কার্বন ডাই-অক্সাইড নিঃসরণের মাত্রা কমিয়ে আনতে তারা এ প্রতিশ্রুতি দেয়।

জলবায়ু বিশ্লেষণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ট্রানজিশনজিরোর প্রতিবেদনে চীনের ইস্পাত উৎপাদনসংক্রান্ত এ তথ্য উঠে আসে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, আগস্টে চীনের ইস্পাত উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮ কোটি ৮০ লাখ টন, যা জুলাইয়ের তুলনায় ১ শতাংশ বেশি।

এশিয়ার বৃহত্তম অপরিশোধিত ইস্পাত উৎপাদনকারী দেশটির জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ৭৩ হাজার ৪৯৯ কোটি টন, যা বছরভিত্তিক হিসাবে ৬ শতাংশ বৃদ্ধির হার নির্ণয় করে।

ট্রানজিশনজিরোর জ্বালানি বিশ্লেষক ম্যাথু গ্রে বলেন, চলতি বছরের শেষ নাগাদ চীনের অপরিশোধিত ইস্পাত উৎপাদনের হার ৪ শতাংশ থেকে ৭ শতাংশ পর্যন্ত বাড়তে পারে। এর অর্থ দাঁড়ায়, চলতি বছর ইস্পাত উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ২০২০ সালের স্তরে নামিয়ে আনার যে সরকারি সিদ্ধান্ত তা বাস্তবায়ন করা অনেকটা অসম্ভব, যদি না পরিকল্পনায় কোনো ধরনের সংস্কার সাধন করা হয়। অর্থাৎ, চীন অতিরিক্ত ১৫ কোটি ৮০ লাখ টন কার্বন নিঃসরণের ঝুঁকি বহন করছে, যা নেদারল্যান্ডসের মোট নিঃসরণের সমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *